April 14, 2021, 4:18 am

#
ব্রেকিং নিউজঃ
চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত.সাপাহার সদর ইউনিয়নে শতভাগ মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে বাড়ি বাড়ি মাস্ক বিতরণ।রমজান আসার আগেই চট্টগ্রাম শপিং কমপ্লেক্সে ক্রেতাদের ভিড়।সাংবাদিক নিয়োগ নীতিমালা নেই বলেই জনকন্ঠ রক্ত ঝড়ালো: বিএমএসএফ।মামুনুল হকের আরেক ‘প্রেমিকা’র সন্ধান।গার্মেন্টস খোলা রাখার দাবি জানান পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএশীঘ্রই মুক্তি পাচ্ছে ‘আতেঁল প্রেমিক’চৌদ্দগ্রামে নারায়নপুর প্রবাসী সমিতির উদ্যোগে গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে নগদ টাকা ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ।করোনা সচেতনতায় স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ।চট্টগ্রাম পটিয়া সাংবাদিক কাদের কে হত্যার চেষ্টায় সাংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

শাহজালাল বিমানবন্দরে ফের বিশাল বোমা।

 মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমাঃ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্মাণাধীন তৃতীয় টার্মিনালে মাটি খোঁড়ার সময় ২৫০ কেজি ওজনের আরও একটি জেনারেল পারপাস (জিপি) বোমা সদৃশ্য বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ধ্বংস করার জন্য বিমান বাহিনীর বোম্ব ডিজপোজাল ইউনিট বোমাটি নিয়ে গেছে বলে জানা গেছে। এ নিয়ে বিমানবন্দরের নির্মাণাধীন তৃতীয় টার্মিনাল থেকে একই ওজনের চারটি বোমা উদ্ধার করা হলো। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকালে বোমাটি উদ্ধার করা হয় বলে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম খান নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, বিমান বন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের কনস্ট্রাকশন সাইটে পাইলিংয়ের কাজ করার সময় আজ সকালে বোমাটি ১০ ফুট মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়। এর আগেও একই এলাকা থেকে একই ওজনের তিনটি তাজা বোমা উদ্ধার করা হয়েছিল। পরে বোমাগুলো বিমান বাহিনীর বোম্ব ডিজপোজাল ইউনিট নিয়ে গিয়ে ধ্বংস করে। এর আগে গত ১৯ ডিসেম্বর তৃতীয় বোমাটি উদ্ধার করা হয়েছিল। ওই সময় আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর জানায়, বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের কনস্ট্রাকশন সাইটে পাইলিংয়ের কাজ করার সময় ১০ ফুট মাটির নিচ থেকে ২৫০ কেজি ওজনের জেনারেল পারপাস (জিপি) বোমা সদৃশ বস্তু পাওয়া যায়। বিমানবাহিনী ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুর প্রশিক্ষিত বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল আধুনিক যন্ত্রপাতি নিয়ে দ্রুততার সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছে বোমাটি নিষ্ক্রিয় করে। পরে বোমাটি ধ্বংস করতে সতর্কতার সঙ্গে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। ধারণা করা হচ্ছে উদ্ধারকৃত বোমাগুলো ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ভূমিতে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। এ বিষয়ে গত ১৪ ডিসেম্বর বিমান বন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এএইচএম তৌহিদ-উল-আহসান বোমা উদ্ধারের বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণ কাজ চালানোর সময় উদ্ধার হওয়া ২৫০ কেজি ওজনের বোমাগুলো তাজা ছিল। মাটির অনেক গভীরে থাকায় এটি বিস্ফোরিত হয়নি। তিনি আরও বলেন, বিমানবন্দরের নির্মাণাধীন তৃতীয় টার্মিনালের কাজের সঙ্গে যারা সংশ্লিষ্ট রয়েছে, তাদের আমরা সতর্ক করে দিয়েছি যেন আবারও বোমা উদ্ধার করা হলে সেই জায়গাটি দ্রুত নিরাপত্তা বলয়ে আনা হয়। তারা যেন আগেভাগেই লোকজনকে সরিয়ে নেয়। এছাড়াও খনন কাজ করার সময় যেন শ্রমিকরা সাবধানতা অবলম্বন করে সেজন্য সব ধরণের সতর্কতামূলক উপদেশগুলো। এর আগে গত বুধবার (৯ ডিসেম্বর) ও সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে মাটি খোঁড়ার সময় বোমা উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থলে এসে বিমানবাহিনীর বোম্ব ডিজপোজাল ইউনিট বোমা দুটি নিষ্ক্রিয় করে নিয়ে যায়। পরে রসুলপুরে বিমানবাহিনীর ফায়ারিং রেঞ্জে বোম্বাগুলো ধ্বংস করে বিমানবাহিনীর বোমা নিষ্ক্রিয় বিশেষজ্ঞ দল

#

     আরো পড়ুন:

পুরাতন খবরঃ

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০