June 20, 2021, 3:46 pm

#
ব্রেকিং নিউজঃ
ভালুকায় ভূমিদস্যু পারুল বাহিনীর শাস্তির দাবীতে মানববন্ধনসাতক্ষীরা তালা বাজার মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় অবকাঠামোগত খাতে পিছিয়েকুবিতে কর্মকর্তা পরিষদের দায়িত্ব হস্তান্তরফুলেল শুভেচ্ছায় শিক্ত হলেন ফরিদপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেতা খলিলুর রহমান সরকারলাকসামে মুজিববর্ষের জমি ও গৃহ প্রদান উদ্বোধনসাপাহারে গৃহহীন পরিবারকে ঘর হস্তান্তরের শুভ উদ্বোধনহরিনাকুন্ডুর কৃতি সন্তান জিদানকে র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরাচ্ছেন গর্বিত পিতামাতা-অভিনন্দন সকলকেসকলকে নৌকার পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানালের কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা এহতাশেমুল হাসান ভূঁইয়া রুমিপীরগঞ্জে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম দ্বিতীয় পর্যায় শুভ উদ্বোধন।আরএমপি’র মতিহার ক্রাইম বিভাগের উদ্যোগে পালিত হলো বৃক্ষরোপণ অভিযান-২০২১

মহেশপুর নেপা ইউনিয়নে অবৈধ বালু উত্তোলনে হুমকিতে ফসলি জমি,মহাসড়ক থামছেনা প্রভালশালীদের দৌরাত্ম্য।

মিজানুর রহমান, বিবিসি বার্তা, ঝিনাইদহ (জেলা) প্রতিনিধিঃ মহেশপুর উপজেলা প্রশাসনের অবহেলায় বালু দস্যুরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। প্রভাবশালীরা প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ভ্যেকু ও ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নদী ও পুকুরের গভীর থেকে প্রতিদিন অসংখ্য ট্রাক বালু উত্তোলন করছে। ভৈরবা থেকে বাঘাডাঙ্গা বাজার পর্যন্ত বহু টাকা ব্যায়ে নির্মিত হচ্ছে নতুন সড়ক ও বেশ কয়েকটি ছোটো বড় কালভার্ট যা হুমকির পড়ছে । ভুক্তভোগীরা বালু উত্তোলন বন্ধে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেও ফল পাচ্ছে না। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট সবার কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে নেপা ইউনিয়নের কাঞ্চানপুর ব্রীজ ও সলেমানপুর সড়ক নিত রাস্তার মোড় নামক স্থানে -১টি ভ্যেকু মেশিন দারা বেশ কয়েকদিন ধরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে অবৈধ বালু ব্যবসায়ী মিঠু।অবৈধ বালু ব্যবসায়ী উপজেলার কাকুলাদাড়ি গ্রামের বাক্কা খানের ছেলে।প্রতিদিন তারা শত শত ট্রাক বালু উত্তোলন ও বিক্রি করে লাভবান হলেও এলাকার মেন সড়ক, ফসলি জমি,কালভার্ট ও বিভিন্ন স্থাপনা হুমকির মুখে পড়েছে। এতে পুকুরের পাড় ভাঙন অব্যাহত রয়েছে।ছলেমানপুর ও খোশালপুর গ্রামের কয়েকজন বলেন, বালু দস্যুরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ তাদের বাধা দেয়ার সাহস করে না। এরা ড্রেজার মেশিন ও ভ্যেকু বসিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নদী ও পুকুরের গভীর থেকে বালু উত্তোলন করছে। এতে গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় সড়ক ও কালভার্ট ছলেমানপুর গ্রামসহ শত শত বিঘা আবাদি জমি ভাঙনের মুখে পড়েছে।নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ২০১০ সালে বালু উত্তোলন নীতিমালায় যন্ত্রচালিত মেশিন দ্বারা ড্রেজিং পদ্ধতিতে নদীর তলদেশ থেকে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়াও সেতু, কালভার্ট, রেললাইনসহ মূল্যবান স্থাপনার এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন করা বেআইনি। অথচ বালু দস্যুরা সরকারি ওই আইন অমান্য নেপা বাঘাডাঙ্গা মহাসড়কের ও কালভার্টের কয়েক গজ দূরে থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে। মুক্তভাবে ভুক্তভোগী এলাকাবাসীদের জোর দাবি অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করা হোক ও বেআইনি ভাবে বালু উত্তোলন করায় তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবী জানিয়েছে।

#

     আরো পড়ুন:

পুরাতন খবরঃ

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০