April 14, 2021, 5:34 am

#
ব্রেকিং নিউজঃ
চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত.সাপাহার সদর ইউনিয়নে শতভাগ মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে বাড়ি বাড়ি মাস্ক বিতরণ।রমজান আসার আগেই চট্টগ্রাম শপিং কমপ্লেক্সে ক্রেতাদের ভিড়।সাংবাদিক নিয়োগ নীতিমালা নেই বলেই জনকন্ঠ রক্ত ঝড়ালো: বিএমএসএফ।মামুনুল হকের আরেক ‘প্রেমিকা’র সন্ধান।গার্মেন্টস খোলা রাখার দাবি জানান পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএশীঘ্রই মুক্তি পাচ্ছে ‘আতেঁল প্রেমিক’চৌদ্দগ্রামে নারায়নপুর প্রবাসী সমিতির উদ্যোগে গরীব ও অসহায় মানুষের মাঝে নগদ টাকা ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ।করোনা সচেতনতায় স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ।চট্টগ্রাম পটিয়া সাংবাদিক কাদের কে হত্যার চেষ্টায় সাংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

ক্ষমতার দাম্ভিকতায় জনসম্মুখে দৈনিক পত্রিকার সাংবাদিককে লাঞ্ছিত

 শাহানাজ পারভীনঃ চট্টগ্রামঃ- চট্রগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ১নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পশ্চিম বাকখালী মধ্যেরধারী গ্রামের বাসিন্দা নুরুল হকের ছেলে অবঃপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মোঃ শফিউল আলম সরকারী চাকরির ক্ষমতা দেখিয়ে এলাকার নিরহ মানুষের উপর প্রতিনিহত জুলুম নির্যাতন করে আসছে। এর কাছে এলাকার মানুষ জিম্মি। ভয়ে কেউ কিছু বলে না। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে ও সে মান্য করে না। উল্লেখ্য যে, সর্বশেষ গত ৩০-০৩-২০২১ ইং তারিখে সকাল ১০ঘটিকার সময় একই গ্রামের ছেলে দৈনিক নবদেশ বার্তার সীতাকুণ্ড উপজেলা ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি আবদুল মামুন তাঁর বাসা থেকে নিউজ কভারেজ করার জন্য সীতাকুণ্ডের উদ্দেশ্যে আসার সময় তার গ্রামের দোকানের সামনে এসে দেখে তার বোনের ছেলে রিয়াজ উদ্দীন সুজনের সাথে একই গ্রামের ছেলে নাঈম উদ্দীনের সাথে গত ২৯-০৩-২০২১ইং তারিখে ঝগড়া হয়। কি নিয়ে ঝগড়া হইয়েছে এই বিষয়টি শুনার জন্য শফিউল আলমের মামা অলি আহম্মদ প্রকাশ( মানিক) রিয়াজ উদ্দীন সুজনকে ডেকে নিয়ে যায়। রিয়াজ উদ্দীন সুজন ও অলি আহম্মদ দুইজনের মধ্যে কথা হচ্ছে এমন সময়ের মধ্যে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রিয়াজ উদ্দীন সুজনকে অবঃপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ও তার ছোট ভাই বিজিবি সদস্য আলী আজগর মারার চেষ্টা করে। এমতঃ অবস্থায় রিয়াজ উদ্দীন সুজনের মামা সাংবাদিক আবদুল মামুন বাঁধা দিলে শফিউল আলম ও তাঁর ছোট ভাই বিজিবি সদস্য আলী আজগর সাংবাদিক মামুনের উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে অবঃপ্রাপ্ত সেনা সদস্য শফিউল আলম সাংবাদিক আবদুল মামুন কে ‘কথা কম ক’ বলে গলায় ধরে ধাক্কা মারে ও তাঁর ছোট ভাই বিজিবি সদস্য আলী আজগর’ তুর কি হইছে’ বলে সাংবাদিক মামুনের শার্টের কলার ধরে টান দেয় তাকে মারার জন্য।এই সময় উপস্থিত লোক জন শফিউল আলম ও তার ছোট ভাই আলী আজগর কে ধরে পেলে এবং তাদের মামা অলি আহম্মদ সাংবাদিক মামুন কে জড়িয়ে ধরে সিএনজি এষ্টেশন থেকে পশ্চিম দিকে নিয়ে আসে। শফিউল আলম ও তার ছোট ভাই বিজিবি সদস্য আলী আজগর আইনের লোক হয়ে প্রকাশ্যে দিবালোকে একজন সাংবাদিকের গাঁয়ে হাত তুলে মানহানী ক্ষুণ্ণ করে এবং বিভিন্ন মাধ্যমে তাঁকে হুমকি দেয়া হয় বলে জানায় সাংবাদিক মামুন এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। বিজিবি সদস্য আলী আজগর বর্তমানে রাজশাহী রিজিওনে কর্মরতঃ আছে বলে জানা যায়।

#

     আরো পড়ুন:

পুরাতন খবরঃ

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০